Connect with us

অস্ট্রেলিয়া

স্মিথকে ‘চিটার’ বলায় সমর্থকদের হয়ে স্মিথের কাছে ক্ষমা চাইলেন কোহলি!

Published

on

বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারির জের বিশ্বকাপেও টানতে হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার দুই সেরা ব্যাটসম্যান স্টিভেন স্মিথ আর ডেভিড ওয়ার্নারকে। বিশ্বকাপের আগে থেকেই ইংলিশ সমর্থকরা বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত দুই অসি ক্রিকেটারকে চিটার বলে ডাকার ঘোষণা দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে চিটার লিখে।

কিন্তু স্টিভেন স্মিথদের কি না মাঠে নেমে ‘চিটার’ গালিটা শুনতে হলো ভারতীয় সমর্থকদের মুখ থেকেই। লন্ডনের কেনিংটন ওভালে রোববার ছিল ভারত-অস্ট্রেলিয়া মহারণ। এই ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে ৩৫২ রান স্কোরবোর্ডে তোলে ভারত।

ভারতের ইনিংস চলাকালেই বাউন্ডারি লাইনে দাঁড়িয়ে ফিল্ডিং করছিলেন স্টিভেন স্মিথ। তখন গ্যালারি থেকে তাকে ‘চিটার, চিটার’ বলে গালি দেয়ার সঙ্গে উত্যক্ত করারও চেষ্টা চলছিল।

কিন্তু ওই সময় হঠাৎই স্টিভেন স্মিথের পক্ষে দাঁড়ান বিরাট কোহলি। ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসে হাত দিয়ে ইশারা করে ভারতীয় সমর্থকদেরকে নিষেধ করেন স্মিথদের গালি দিতে। কোহলির আহ্বানে সমর্থকরা ধুয়ো ধ্বনি দেয়া বন্ধ করে ঠিকই। কিন্তু কোহলির মধ্যে আত্মসমালোচনা বোধটা থেকে যায়।

যে কারণে ম্যাচ শেষে জয়ী দলের অধিনায়ক হিসেবে সংবাদ সম্মেলনে এসে বিরাট কোহলি মিডিয়ার মাধ্যমে ভারতীয় সমর্থকদের পক্ষ থেকে স্টিভেন স্মিথের ক্ষমা প্রার্থনা করলেন।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে কোহলি বলেন, ‘কি ঘটেছিল সেটা তো অনেক আগের। সে এখন তার নিজের দল এবং দেশের জন্য সর্বোচ্চটা দিয়ে খেলার চেষ্টা করছে। মাঠের মধ্যে অনেক কিছুই আছে, যেগুলো নিয়ে আমরা কথা বলতে পারি, কাজ করতে পারি। কিন্তু এটা তো কোনোভাবেই দেখতে চাই না যে, একজন ব্যক্তিকে নিয়মিতই আঘাত করে যাওয়া হচ্ছে কোনো একটা পুরনো ভুল ধরে।’

ভারতীয় সমর্থকদের পক্ষ থেকে এ ধরনের আচরণ কোনোভাবেই আশা করেন না কোহলি। তিনি বলেন, ‘আমি চাই না ভারতীয় সমর্থকরা বাজে কোনো নজির স্থাপন করুক। আমি তার কষ্টটা অনুধাবন করেছি এবং তাকে বলেছি, ভারতীয় সমর্থকদের পক্ষ থেকে তোমার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। আমার মতামত হচ্ছে, এ ধরনের (সমর্থকদের পক্ষ থেকে) আচরণ কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।’

অস্ট্রেলিয়া

সর্বকালের সেরা একাদশে স্টার্ককে চান বোর্ডার!

Published

on

পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার সর্বকালের সেরা একাদশ যদি করা হয় তাতে জায়গা মিলবে অনেক রথী মহারথী ক্রিকেটারের।কেননা ক্রিকেটের অনেক কিংবদন্তির জন্মস্থান যে এই দেশে।সেই দেশের এমন বর্ণাঢ্য একাদশে মিচেল স্টার্ককে চান অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক অ্যালান বোর্ডার।  

গত শনিবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৮৬ রানে জয় পায় অজিরা। সেই ম্যাচে মাত্র ২৬ রান খরচায় পাঁচ উইকেট তুলে নেন স্টার্ক। বাঁহাতি এই পেসারের পারফর্মেন্সে মুগ্ধ হয়ে বোর্ডার জানান,

‘আপনি তাকে অবশ্যই অস্ট্রেলিয়ার সর্বকালের সেরা একাদশে রাখতে চাইবেন। কেননা সে বড় ম্যাচের পারফর্মার। অস্ট্রেলিয়া দলে সবাই ভালো খেলে। কিন্তু সে সবসময় বড় ম্যাচে ভালো খেলে। 

সে সঠিক সময়ে পারফর্ম করছে। অস্ট্রেলিয়াকে এখন আরও শক্তিশালী মনে হচ্ছে। অথচ ছয় মাস আগেই তারা বাজে পারফর্মেন্স করছিল।’

চলমান বিশ্বকাপে দারুন ফর্মে আছেন অজি এই পেসার, এখন পর্যন্ত খেলা আট ম্যাচে ১৫.৫৪ গড়ে ২৪ টি উইকেট পেয়েছেন বোর্ডার। এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় শীর্ষে আছেন তিনি।তাছাড়া এই বিশ্বকাপে একমাত্র খেলোয়ার হিসেবে দুইবার শিকার করেছেন ৫উইকেট করে।

Continue Reading

অস্ট্রেলিয়া

দুর্দান্ত স্টার্ক, ‘সেমি’ ভাগ্য ঝুলে রইল নিউজিল্যান্ডের!

Published

on

বিশ্বকাপের ৩৭তম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে ৮৬ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ফলে কিউইদের সেমিফাইনালের স্বপ্ন এখনো পেন্ডুলামের মতো দুলছে। লর্ডসে অস্ট্রেলিয়ার ছুঁড়ে দেয়া ২৪৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে মিচেল স্টার্কের দুর্দান্ত স্পেলে ১৫৭ রানেই গুঁটিয়ে যায় কিউইরা। ৯.৪ ওভার বোলিং করে ২৬ রান খরচায় ৫ উইকেট শিকার করেছেন তিনি। পাশাপাশি গুঁড়িয়ে দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আপকে। স্টার্ক ছাড়াও জেসন বেহরেনডর্ফ নিয়েছেন ৩১ রানে ২ উইকেট। আর একটি করে উইকেট পেয়েছেন প্যাট কামিন্স, নাথান লায়ন এবং স্টিভেন স্মিথ। 

অস্ট্রেলিয়ান বোলারদের অসাধারণ পারফর্মেন্সে এদিন ম্লান হয়ে গেছে কিউই পেসার ট্রেন্ট বোল্টের হ্যাটট্রিক আনন্দ। এবারের বিশ্বকাপে ভারতের মোহাম্মদ শামীর পর দ্বিতীয় হ্যাট্রিক তুলে নিয়েছেন বোল্ট। বিশ্বকাপ ইতিহাসের ১১তম হ্যাটট্রিক এটি। আফগানিস্তানের বিপক্ষে এই টুর্নামেন্টেই প্রথম হ্যাটট্রিক করেছিলেন ভারতের পেসার মোহাম্মদ শামি। এবার বোল্টও সেই কাতারে নাম লেখেন।

অস্ট্রেলিয়া ইনিংসের শেষ ওভারে হ্যাটট্রিকটি করেছেন বোল্ট। ৫০তম ওভারের তৃতীয় বলে দারুণ খেলতে থাকা খাওয়াজাকে ৮৮ রানে এবং ওভারের চতুর্থ বলে রানের খাতা খোলার আগেই স্টার্ককে বোল্ড করে আউট করেন তিনি। পঞ্চম বলে জেসন বেহরেনড্রফকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন বোল্ট।

সবমিলিয়ে ১০ ওভার বোলিং করে ৫১ রান খরচায় ৪ উইকেট শিকার করেছেন তিনি। তবে বোল্টের দারুণ বোলিংয়ের পরও ৯ উইকেটে ২৪৩ রানের মাঝারি লক্ষ্য নিয়ে মাঠ ছাড়তে সক্ষম হয় অস্ট্রেলিয়া। এর সিংহভাগ কৃতিত্ব উসমান খাওয়াজা এবং উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স ক্যারির। কারণ দলের অন্য ব্যাটসম্যানরা যখন ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন তখন দারুণ ব্যাটিং পারফর্মেন্স উপহার দিয়েছেন এই দুই ব্যাটসম্যান। খাওয়াজার ৮৮ এবং ক্যারির ৭১ রানে ভর করেই ২০০ ঊর্ধ্ব পুঁজি পায় অজিরা। এছাড়াও প্যাট কামিন্স অপরাজিত থাকেন ২৩ রান নিয়ে।

বোল্টের পাশাপাশি বল হাতে এদিন ছন্দে ছিলেন লকি ফার্গুসন, জিমি নিশাম। দুই পেসারই পেয়েছেন সমান ২টি করে উইকেট। ২৪৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে স্টার্কের তোপের মুখে পড়তে হয় কিউইদের। তাঁর অসাধারণ বোলিংয়ের সামনে সুবিধা করতে পারেননি কোনো ব্যাটসম্যানই। সর্বোচ্চ ৪০ রানের ইনিংস খেলতে পেরেছেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। এছাড়াও রস টেলর ৩০ ও মার্টিন গাপটিল ২০ রান করেছেন।

এই হারে ৮ ম্যাচে ৫ জয় ও ১ পরিত্যক্ত ম্যাচ হওয়ায় ১১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয় স্থানে আছে নিউজিল্যান্ড। অন্যদিকে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

অস্ট্রেলিয়াঃ ২৪৩/৯ (৫০ ওভার) (খাওয়াজা ৮৮, ক্যারি ৭১, স্টয়নিস ৭১; বোল্ট ৪/৫১ )

নিউজিল্যান্ডঃ ১৫৭/১০ (৪৩.৪ ওভার) (উইলিয়ামসন-৪০, টেলর- ৩০; স্টার্ক-৫/২৬, বেহরেনডর্ফ-২/৩১) 

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ: অ্যালেক্স ক্যারি।

Continue Reading

অস্ট্রেলিয়া

সেমি নিশ্চিত করলেও বিশ্রাম পাবে না কোন খেলোয়ার: ল্যাঙ্গার!

Published

on

দ্বাদশ বিশ্বকাপের প্রথম এবং এখন পর্যন্ত একমাত্র দল হিসেবে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে অস্ট্রেলিয়া।এছাড়া আর অন্য কোন দল এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করতে পারেনি সেমিফাইনাল। যদিও রাউন্ড রবিন লিগে এখনো দলটির দুটি ম্যাচ বাকি।

শেষ চার নিশ্চিত বলে এই দুই ম্যাচে পরীক্ষানিরীক্ষার আশ্রয় নেবে দল- এমন কথা শোনা যাচ্ছিল। সেক্ষেত্রে মিচেল স্টার্ক ও প্যাট কামিন্সের মত পেসাররা বিশ্রাম পেতে পারতেন।কেননা পেসারদের নিয়ে একটা শঙ্কা কাজ করে সবসময়, তারা প্রায়ই সময়ই ইন্জুরিতে ভোগেন।

তবে দলটির কোচ জাস্টিং ল্যাঙ্গার দলের পেস আক্রমণভাগে পরিবর্তন, পরীক্ষা নিরীক্ষা বা ভালো পারফর্মারদের বিশ্রামের গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, রাউন্ড রবিন লিগের বাকি দুটি ম্যাচেও পূর্ণ শক্তি নিয়ে মাঠে নামতে চায় অস্ট্রেলিয়া। আর তার প্রধান কারণ, স্টার্ক বা কামিন্সের কেউই বিশ্রাম নিতে চাচ্ছেন না।

শুক্রবার (২৮ জুন) নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে ল্যাঙ্গার বলেন, ‘তাদের কেউ বিশ্রাম পেলে আমি বিস্মিত হব। সামনে আমাদের লম্বা বিরতি আছে। এখানে কিছুটা কম থাকলেও ম্যানচেস্টারে পাঁচ কিংবা ছয় দিন থাকতে হবে। সত্যিকার অর্থেই আমাদেরকে এটা ভালোভাবে সামলাতে হবে। সুতরাং আমি মনে করিনা তারা বিশ্রাম চাইবে।’

স্টার্ক বর্তমানে আসরের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি, নিয়েছেন ১৯ টি উইকেট! কামিন্স শিকার করেছেন ১১ উইকেট। স্টার্কের চেয়ে ম্লান হলেও কামিন্সের ফর্ম চিন্তায় ফেলছে না অজি কোচকে।

ল্যাঙ্গার বলেন, ‘আমাদের দলের তার একটা বড় ভূমিকা আছে। সে এমন একজন খেলোয়াড় যার ওপর যখন আপনার একটা উইকেট দরকার কিংবা একটা ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য বিশ্বাস করা যায়।’

প্রসঙ্গত, সেমিফাইনালের আগে অস্ট্রেলিয়ার পরবর্তী দুটি ম্যাচ নিউজিল্যান্ড (২৯ জুন) ও দক্ষিণ আফ্রিকার (৬ জুলাই) বিপক্ষে।

Continue Reading
Coming Soon
Advertisement

Most Popular