Connect with us

ইংল্যান্ড

তিনটি মাঠেই বিশ্বকাপ শেষ করতাম: মরগান!

Published

on

ইংল্যান্ড দলের অধিনায়ক ইয়ন মরগান জানিয়েছেন,যদি ঘরের মাঠের সুবিধা কাজে লাগানোর সুযোগ থাকতো তাহলে গ্রুপ পর্বের ৯টি ম্যাচই এজবাস্টন, ওভাল ও ট্রেন্ট ব্রিজে খেলতাম আমরা।

মরগানের নেতৃত্বে ইতোমধ্যে ইংল্যান্ড সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে ঠিকই।তবে সেমি নিশ্চিত করতে অনেক চড়াই-উৎরাই পার করতে হয়েছে তাকে। গ্রুপ পর্বের ম্যাচে বার্মিংহামের এজবাস্টনে ভারতের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় পেয়েছে বিশ্বকাপের স্বাগতিকরা। এই মাঠেই ভারত কিংবা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সেমিফাইনালে খেলবে তাঁরা।তাই স্বস্তি প্রকাশ করেছেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক। তিনি বলেন,

‘এই মাঠে খেলতে আমরা খুব পছন্দ করি। বিশ্বকাপের ম্যাচগুলো আমরা কোথায় খেলতে চাই, তা যদি আমাদের বাছাই করার সুযোগ থাকতো তাহলে এজবাস্টন, ওভাল ও ট্রেন্ট ব্রিজ সম্ভবত এই তিনটা মাঠে আমরা নয়টা ম্যাচ খেলতে চাইতাম। তাই এটা স্বস্তির যে সেমিতে ঐ তিনটা মাঠের একটাতে আমরা খেলব।’

শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচে হেরে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালের পথ অনেকটাই কঠিন হয়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ডের। তবে সর্বশেষ দুই ম্যাচে ভারত এবং নিউজিল্যান্ডকে উড়িয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইংলিশরা। এই দুটি জয় ২৭ বছর পর সেমিফাইনালে জায়গা করে নেয়া ইংল্যান্ড দলকে আত্মবিশ্বাস যোগাবে বলে বিশ্বাস মরগানের।সর্বশেষ ১৯৯২ বিশ্বকাপে সেমিতে খেলেছিল ক্রিকেটের জন্মদাতা ইংল্যান্ড।

তিনি আরও বলেন- ‘আমি মনে করি, গত দুই ম্যাচে আমরা যা অর্জন করেছি, সামনে ভালো করতে তা আমাদের কাজে আসবে। এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এ কারণেই আমরা গ্রুপ পর্ব পার করেছি এবং আমরা নিজেদের সেরা ক্রিকেটের খানিকটা খেলতে সমর্থ হয়েছি।’

ইংল্যান্ড

মাঠে হঠাৎ ‘আগন্তুক’ প্রবেশ খেলোয়ারদের মনোযোগ বাড়ায়!

Published

on

আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯ এর ৪১তম ম্যাচ চলাকালীন অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে নগ্ন অবস্থায় মাঠে প্রবেশ করেন আগন্তুক এক ব্যাক্তি। ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার জেরেমি স্নেপ মনে করেন, হঠাৎই এমন করে মাঠে আগন্তুকের প্রবেশ খেলোয়াড়দের ম্যাচের পরবর্তী অংশে আরও মনোযোগ দিতে সাহায্য করে।

বুধবার ( ৩ জুলাই) চেস্টার লি স্ট্রিটের রিভারসাইড গ্রাউন্ডে মুখোমুখি হয়েছিল নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ড। উক্ত ম্যাচ চলাকালীন শুধু সবুজ রঙের এক বাহারি টুপি পরে মাঠে প্রবেশ করেন এক ব্যক্তি। শুধুমাত্র তার মাথায় ছিল ঐ টুপি আর পরনে কোন কাপড় ছিল না।

হঠাৎ করেই মাঠে দর্শকদের প্রবেশ করার ঘটনা ক্রিকেটে নতুন কিছু নয়। বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরের নিরাপত্তা জাল ভেদ করেও তেমনই  এক ব্যক্তি মাঠে প্রবেশ করে ফেলে। তবে এই ঘটনার ইতিবাচক দিকও দেখছেন জেরেমি। সাবেক এই ইংলিশ অফস্পিনার বলেন, ‘প্রতিপক্ষের করা স্লেজিং, মাঠে হঠাৎ মৌমাছি কিংবা কোনো আগন্তুকের প্রবেশ- খেলোয়াড়দের মনোযোগ নতুন করে ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। আমরা মস্তিষ্কের অবাক হওয়াটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না ঠিকই, কিন্তু নিজেদের চিন্তা-ভাবনাকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি।’

অস্ট্রেলিয়ান এক মনোবিদও ক্রিকেট মাঠে আগন্তুকের প্রবেশ নিয়ে কথা বলেছেন। ফিল জন্সি বলেন ‘কেউ কেউ পরিচিতি লাভ করতে চায়। এমনকি মূর্খের মতো কাণ্ডকারখানা ঘটিয়ে তারা খ্যাতি অর্জন করতে চায়। কিছুক্ষণের জন্য মানুষও তাদের দিকে নজর দেয়।’

ক্রিকেট মাঠে কিংবা যেকোন জায়গায় মানুষের সামনে এভাবে নগ্নভাবে চলে আসাটাকে মনোবিদ ফিল যেভাবে দেখছেন, ‘তারা মাদকদ্রব্য বা ড্রাগ ব্যবহারের ফলে অথবা বন্ধুদের সাথে বাজি ধরেও এমন কাজ ঘটিয়ে বসে। নগ্নভাবে বা  সমাজবিরোধী এমন কাজ করে তারা মানুষের নজরে আসে ঠিকই, তবে কাজটা করে ফেলার পরে অনুতপ্ত হয়।’

Continue Reading

ইংল্যান্ড

সব কল্পনা-জল্পনার অবসান ঘটিয়ে সেমিতে ইংল্যান্ড!

Published

on

সেমিফাইনাল নিশ্চিতের ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে ১১৯ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। আগে ব্যাটিং করে জনি বেয়ারস্টোর শতকে ইংল্যান্ড সংগ্রহ করেছিল ৩০৫ রান।৩০৫ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে মাত্র ১৮৬ রানেই গুটিয়ে যায় কিউইদের ইনিংস।

চেস্টার লি স্ট্রিটের রিভারসাইড গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক ইয়ন মরগান।ব্যাটিংয়ে নামার পর থেকেই দুই ওপেনার জনি বেয়ারস্টো ও জেসন রয়ের ঝড়ো শুরুতে মাত্র ১৪.৪ ওভারেই দলীয় শতরান পূরণ করে স্বাগতিক এই দলটি। ৬০ রান করে জিমি নিশামের শিকার হয়ে রয় ফিরলে ভাঙে ১২৩ রানের উদ্বোধনী জুটি। দ্বিতীয় উইকেটে বেয়াস্টোর সাথে ৭১ রানের জুটি গড়েছিলেন জো রুট। তিনি ফেরেন ২৪ রানে।

অন্যদিকে টিম সাউদিকে ৪ মেরে ৯৫ বলে জনি বেয়ারস্টো তুলে নিয়েছেন বিশ্বকাপের টানা দ্বিতীয় শতক।পরবর্তীতে ম্যাট হেনরির বলে বোল্ড হয়ে ১০৬ রানে থামেন বেয়ারস্টো। তার আগে ৯৯ বলে ১৫টি চার ও ১টি ছক্কা হাঁকান। বেয়ারস্টোর সাথে সাথে দ্রুতই ফিরে যান জস বাটলার ও বেন স্টোকস।

মিডল অর্ডারে ইয়ন মরগান একাই লড়াই করেছেন। ইংলিশ অধিনায়কের ব্যাট থেকে আসে ৪২ রান। তার ৪০ বলের ইনিংসটির সমাপ্তি হয় হেনরির ছোবলে। শেষ দিকে আদিল রশিদ ও লিয়াম প্লাঙ্কেটের ব্যাটে ভর করে তিনশ ছাড়ায় স্বাগতিকদের ইনিংস। আদিল করেন ১২ বলে ১৬ রান। প্লাঙ্কেটের ব্যাট থেকে আসে ১২ বলে ১৫ রান।

নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ইংল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩০৫ রান। ৩১ ওভারের দলীয় ২০০ রান পূর্ণ করা ইংলিশরা শেষ ১৯ ওভারে করতে পেরেছেন মাত্র ১০৫ রান। কিউইদের হয়ে ২টি উইকেট শিকার করেছিলেন হেনরি, নিশাম ও ট্রেন্ট বোল্ট।

৩০৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি নিউজিল্যান্ডের। রানের খাতা খোলার আগেই ফিরে যান হেনরী নিকোলস। ব্যর্থ হয়েছেন মার্টিন গাপটিলও (৮)। দলীয় ১৪ রানে ২ উইকেট হারানোর পর প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেয়ার চেষ্টা করেন দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান রস টেলর ও কেন উইলিয়ামসন।

এই অভিজ্ঞ দুই ব্যাটসম্যানের রান আউটে জোড়া ধাক্কা খায় নিউজিল্যান্ড। ৮ রানের ব্যবধানে উইলিয়ামসন ও টেলরকে হারিয়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে দলটি। জিমি নিশাম ও টম লাথাম ৫৪ রানের জুটি গড়ে বিপর্যয় সামাল দেয়ার চেষ্টা করেন। তবে ৫ রানের ব্যবধানে আবারো জোড়া ধাক্কা খায় কিউইরা। ফিরে যান নিশাম ও কলিন ডি গ্রান্ডহোম।

একপ্রান্তে দাঁড়িয়ে টেলর-নিশামদের আসা-যাওয়া দেখতে থাকা লাথাম তুলে নেন অর্ধশতক। প্লাঙ্কেটের শিকার হওয়ার আগে করেন ৬৫ বলে ৫৭ রান। সপ্তম উইকেটে মিচেল স্যান্টনারের সাথে ৩৬ রানের জুটি গড়ে বিদায় নেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

১৬৪ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে পরাজয়ের ক্ষণ গুনতে থাকা নিউজিল্যান্ড অলআউট হয় ১৮৬ রানে। স্বাগতিকদের হয়ে ৩টি উইকেট শিকার করেন পেসার মার্ক উড। ফলে ১১৯ রানের বড় জয়ে প্রায় ২৭ বছর পর সেমিফাইনালে উঠল ইংল্যান্ড।সবশেষ ১৯৯২ সালে সেমিতে খেলেছিলো ইংল্যান্ড। উল্লেখ্য সেবার ইমরান খানের নেতৃত্বে দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপ জিতে পাকিস্তান।

অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের সেমিফাইনাল এখনো নিশ্চিত না হলেও অপেক্ষা করতে হচ্ছে বাংলাদেশ পাকিস্তান ম্যাচ পর্যন্ত।যদিও পাকিস্তানের সেমিফাইনাল স্বপ্ন একেবারেেই মিশে গেছে ধুলির সাথে।কেননা সেমিতে উঠতে পাকিস্তানকে যে করতে হবে অসাধ্য সাধন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড ৩০৫/৮ (৫০ ওভার)
বেয়ারস্টো ১০৬, রয় ৬০, মরগান ৪২, রুট ২৪, আদিল ১৬, স্টোকস ১১, বাটলার ১১
নিশাম ২/৪১, হেনরি ২/৫৪,  বোল্ট ২/৫৬।

নিউজিল্যান্ড ১৮৬/১০ (৪৫ ওভার)
লাথাম ৫৭, টেলর ২৮, উইলিয়ামসন ২৭, নিশাম ১৯, স্যান্টনার ১২।
উড ৩/৩৪।

ফলাফল: ইংল্যান্ড ১১৯ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্যা ম্যাচ: জনি বেয়ারস্টো।

Continue Reading

ইংল্যান্ড

ইংলিশদের মধ্যে বেয়ারস্টোই প্রথম!

Published

on

কদিন আগেও বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের পারফরমেন্স নিয়ে কঠোর সমালোচনা করছিল দেশটির শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যমগুলো। তা নিয়ে এক সাক্ষাতকারে এর মোক্ষম জবাব দিয়েছিলেন দলটির উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান জনি বেয়ারস্টো। এবং সেই জবাবটা মাঠের মধ্যেও দিয়ে যাচ্ছেন তিনি। আজ (বুধবার) প্রথম ইংলিশ ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বকাপে টানা দুই সেঞ্চুরির কীর্তি গড়েছেন বেয়ারস্টো।

বিশ্বকাপের শুরু থেকেই ইংল্যান্ডের হয়ে দুর্দান্ত ধারাবাহিক বেয়ারস্টো। তবে শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দলের হারের পর সমালোচনা ভার বহন করতে হয় তাকেও। কেননা সেই দুই ম্যাচ তিনিও ভালো করতে পারেননি। কিন্তু ভারতের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরিতে ট্র্যাকে ফিরেন এই ব্যাটসম্যান। তার ১১১ রানের ইনিংসে ভর ভারতের বিরুদ্ধে জয় পায় ইংল্যান্ড।

রানের সেই ধারাবাহিকতা আজ (বুধবার) চেস্টার লি স্ট্রিটে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও বজায় রাখলেন বেয়ারস্টো। আবারও তুলে নিলেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। শেষ পর্যন্ত কিউই পেসার ম্যাট হেনরির দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে বোল্ড হয়ে ১০৬ রানে প্যাভিলিয়নে ফিরেন তিনি।

সেঞ্চুরি উদযাপনে বেয়ারস্টো

বিশ্বকাপে টানা দুই সেঞ্চুরির রেকর্ড ছাড়াও ইংলিশ ব্যাটসম্যান হিসেবে আরো একটি রেকর্ড গড়েছেন বেয়ারস্টো। ওয়ানডে ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টানা তিন ম্যাচে সেঞ্চুরি করা ইংল্যান্ডের প্রথম ক্রিকেটার এখন তিনিই।

ইংল্যান্ডের হয়ে এবারের আসরে নয় ম্যাচ খেলে ৫১.৩৩ গড়ে মোট ৪৬২ রান করেছেন বেয়ারস্টো। এর মধ্যে সমান দুইটি করে অর্ধশতক ও সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন এই ব্যাটসম্যান।

Continue Reading
Coming Soon
Advertisement

Most Popular